এক ম্যাচ খেলতে ৮,৭৫৯ কিলোমিটার পথ পাড়ি!

এক ম্যাচ খেলতে ৮,৭৫৯ কিলোমিটার পথ পাড়ি!

90
0
SHARE

দলকে সমর্থন দিতে কত দূর যেতে পারেন আপনি? এক পাড়া থেকে আরেক পাড়া। কিংবা আরেক শহরে এই তো? ফুটবলের রমরমা যুগে এক জেলা থেকে আরেক জেলাতেও পাড়ার দলকে সমর্থন দিতে ছুটে গেছেন অনেকে। কিন্তু সে উদাহরণ টেনে জেনিত সেন্ট পিটার্সবার্গের সমর্থকদের সঙ্গে নিজেদের তুলনা টানতে যাওয়াটা ঠিক হবে না হয়তো। খুব ‘বেশি’ নয়, লিগের একটি ম্যাচ দেখতে এবার ৫ হাজার ৪৪২ মাইল পথ পাড়ি দিতে হবে তাঁদের!

অম্লান বদনে তো ৫ হাজার ৪৪২ মাইল কিংবা ৮ হাজার ৭৫৯ কিলোমিটার পথ বলে ফেলা গেল। দূরত্বটা আসলে কতটুকু? ব্যাপারটা বুঝতে একটু বাংলাদেশের দিকে নজর দেওয়া যাক। দেশের সর্ব উত্তরের বাংলাবান্ধা থেকে সর্ব দক্ষিণের ছেঁড়া দ্বীপ—এ দীর্ঘ দূরত্বটাও ৪৮৬ মাইল কিংবা ৭৮২ কিলোমিটার। জেনিত দলকে একটি ম্যাচ খেলতেই পাড়ি দিতে হবে এর ১১ গুণেরও বেশি পথ!
গুগল ম্যাপে দেখে নিন কতটা লম্বা পথ পাড়ি দিতে হবে জেনিতকে!ঝামেলাটা করেছে এফসি-এসকেএ খাবারোফস্ক। এবারই প্রথম রাশিয়ার প্রিমিয়ার লিগে উঠেছে এ ক্লাব। খাবারোফস্ক শহরটি রাশিয়ার পূর্বে অবস্থান করছে। চীন সীমান্তের পার্শ্ববর্তী এ শহরের পাশেই আছে কোরিয়া ও জাপান। কিন্তু স্ক্যান্ডেনেভিয়ার দেশগুলোর প্রতিবেশী সেন্ট পিটার্সবার্গ থেকে এ বড্ড দূরের পথ। দ্রুতগতির বিমানে চড়েও এ পথ যেতে সাড়ে সাত ঘণ্টা লাগবে। আর বিমানে না চড়ে অর্থসংকুলান করতে চাইলে সড়কপথ তো আছেই! ব্যক্তিগত গাড়িতে চড়ে ১১১ ঘণ্টার এদিক-ওদিক সময় লাগবে বলেই ধারণা। আর যদি রাশিয়ার পৃথিবীখ্যাত ট্রান্স-লাইবেরিয়ার রেলপথ ধরে চলার ইচ্ছা জাগে তবে ৫ দিন ১৭ ঘণ্টা কাটিয়েই পৌঁছাতে হবে খাবারোফস্কে। রবার্তো মানচিনি ও তাঁর দলের সামনে আক্ষরিক অর্থেই ‘বন্ধুর’ পথ!
তবে শুধু জেনিতকেই এ কষ্ট করতে হবে সেটা ভাবলে ভুল হবে। এবার প্রিমিয়ার লিগের ১৬ দলের ১০টিই এসেছে পূর্বাঞ্চলের শহর থেকে, ফলে এবার দূর-দূরান্তের পুবের শহরে ঘোরাফেরা হবে অনেক। উয়েফা লিগ খেলতে রাশিয়ার পূর্বে যেতে হয়েছে অনেক দলকেই। বিশ্ব ক্লাব কাপ খেলতেও জাপানে যেতে হয় ক্লাবগুলোকে। কিন্তু একই লিগের দুটি দলের ম্যাচের জন্য এত লম্বা পথ পাড়ি দেওয়া সম্ভবত এবারই প্রথম ঘটছে!

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY