জঙ্গি আস্তানার খোঁজে অভিযান শেষ, গ্রেপ্তার ডাকাত

জঙ্গি আস্তানার খোঁজে অভিযান শেষ, গ্রেপ্তার ডাকাত

128
0
SHARE

গাইবান্ধা সদর উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চলে জঙ্গি আস্তানার খোঁজে চালানো অভিযান আজ বুধবার বেলা একটায় শেষ হয়েছে। আট ঘণ্টার এ অভিযানে কোনো জঙ্গির সন্ধান পাননি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। তবে এ সময় সদর উপজেলার মোল্লারচর ইউনিয়নের সিধাইলচর থেকে শুকুর আলী (২৫) নামের এক ডাকাতকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আজ ভোর পাঁচটা থেকে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মইনুল হকের নেতৃত্বে কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, ডিবি পুলিশ, থানা ও জেলা পুলিশের সমন্বয়ে একটি দলের শতাধিক সদস্য সদর উপজেলার কামারজানি ও মোল্লারচরের চরাঞ্চলে বিশেষ অভিযান শুরু করেন। বেলা একটায় অভিযান শেষ হয়।

অভিযান শেষে বেলা সোয়া একটার দিকে ফুলছড়ি উপজেলার বালাসিঘাটে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করে মো. মইনুল হক বলেন, ‘নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে এই অভিযান চালানো হয়েছে। এ ছাড়া আমাদের কাছে খবর ছিল চরাঞ্চলে জঙ্গি আস্তানা রয়েছে। কিন্তু আট ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে কোনো জঙ্গির সন্ধান পাওয়া যায়নি। এ সময় এক ডাকাতকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এর আগে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদি হাসান আজ বেলা একটার দিকে মোবাইলে  বলেন, ‘আমরা সদর উপজেলার পূর্ব সিধাইল, চিথুলিয়া, সাপেরচরসহ কয়েকটি চরে অভিযান চালিয়েছি। এক ডাকাতকে গ্রেপ্তার ও দুটি বেকি উদ্ধার করা হয়।’

ওসি বলেন, শুকুর আলীর বিরুদ্ধে ডাকাতি মামলা রয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত শুকুর আলীর সাত ভাই। তাঁদের মধ্যে পাঁচজনই ডাকাত। তাঁদের নেতৃত্বে গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন চরাঞ্চলে ডাকাতি সংঘটিত হতো। কিন্তু তাঁদের ভয়ে কেউ মামলা করার সাহস পায়নি।

গত বছর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা গাইবান্ধার সদর, ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় কয়েক দফায় অভিযান চালান। কিন্তু অভিযানে পরিত্যক্ত দু-তিনটি দেশীয় অস্ত্র ছাড়া উল্লেখযোগ্য কিছু উদ্ধার হয়নি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY