পথের ধারে শীতের ফ্যাশন

পথের ধারে শীতের ফ্যাশন

63
0
SHARE

হালকা কুয়াশার চাদর আর ঘরে ফ্যান না চালানো জানান দিচ্ছে যে শীত চলেই এসেছে। রীতিমতো ঘরে ঢুকে বসে আছে। শীতের পোশাক গায়ে চাপানো শুরু হয়ে গেছে। বড় বড় দোকানে চলে এসেছে শীতের পোশাক। বাকি নেই রাস্তার পাশের দোকান আর ভ্যানগুলোও। মজার ব্যাপার হলো, হাল ফ্যাশনের পোশাকগুলো পাওয়া যায় এসব দোকানেও। বাংলাদেশের তৈরি পোশাকশিল্পের কারণে বিশ্বখ্যাত অনেক ব্র্যান্ডের পোশাক তৈরি হয় এখানে। সামান্য ত্রুটি বা অন্য কোনো কারণে ক্রেতাপ্রতিষ্ঠান যেগুলো বাতিল করে দেয়, সেসব পোশাক চলে আসে রাজধানীর বাজারে।

শ্রাগের কাটেও আছে নতুন ধারা। পোশাক: নন্দিতা ফ্যাশন–২, সাজ: পারসোনাগোটা দুনিয়াতেই স্ট্রিট ফ্যাশনের চাহিদা আছে বেশ। বাংলাদেশের ফ্যাশন-সচেতন তরুণীরাও নিয়মিত ঢুঁ মারেন এসব বাজারে, বিশেষ করে শীতের পোশাকের খোঁজে। এসব বাজারের মধ্যে ঢাকা কলেজের উল্টো দিকের বদরুদ্দোজা মার্কেট, বঙ্গবাজার, নিউ সুপার মার্কেটের খ্যাতি বেশি। নিজের জন্য কম দামে সবচেয়ে সুন্দর পোশাকটি বেছে নেন ক্রেতারা। এর জন্য শুধু দরকার একটু বাড়তি সময় আর ফ্যাশনবোধ।
এমন কথা বললেন শারমিন আক্তারও। পড়াশোনা শেষ করে আপাতত চাকরির চেষ্টা করছেন। নিজের জন্য একটা সোয়েটার খুঁজছিলেন তিনি। বললেন, ‘রাস্তার পাশের দোকানগুলোতে মেয়েদের যেসব শীতের পোশাক পাওয়া যায়, সেসব সত্যিই সুন্দর। আমার ব্যক্তিত্বের সঙ্গে যায় তেমন পোশাক বেছে নিলেই হয়। এতে টাকাও সাশ্রয় হয়।’
আগে যেখানে চাদর মুড়ি দিয়ে শীতের সঙ্গে যুদ্ধ করতে হতো, এখন সেই জায়গাটা দখল করেছে টুপি ও হাতমোজা। সঙ্গে বড় বড় ওভারকোট তো থাকছেই। রাস্তার পাশে দোকানগুলোতে খুঁজলেই আপনি পেয়ে যাবেন মনের মতো নানান ডিজাইনের, নানান রঙের ও নানান ধরনের পোশাক।
লম্বা উলের টুপিতে দেখাবে স্টাইলিশবাজার ঘুরলে আপনি পাবেন বিভিন্ন ব্র্যান্ডের অসাধারণ সব শীতের পোশাক। এগুলোরই কোনো কোনোটা দেশের বাইরে রপ্তানি হয় চড়া দামে। নুরজাহান মার্কেটের নন্দিতা ফ্যাশনের বিক্রেতা অর্ক শরীফ বলেন, দেশের বাইরে রপ্তানি করার জন্য তৈরি ভালো ভালো পোশাক এখানে পাওয়া যায়।
শর্ট ব্লেজার, লং কোট, শর্ট কোট, ফুলস্লিভ জ্যাকেট, স্লিভলেস জ্যাকেট, উলের পোশাক, ব্লেজার, শ্রাগের মতো সোয়েটার, কোল্ড শোল্ডারের লম্বা সোয়েটার পাওয়া যাচ্ছে রাস্তার পাশের দোকানগুলোতে। আছে গোল গলার বা গলাবন্ধ ফুল হাতা শীতকালীন টপ, আছে পঞ্চও। বরাবরের মতো হুডিওয়ালা বা হুডিছাড়া সোয়েটার তো থাকছেই।
নিজেকে ফ্যাশনেবল করতে বেশি টাকার প্রয়োজন নেই, শুধু দরকার ফ্যাশন সেন্স, তেমনটাই মনে করেন তানজীমা এলহাম। তাঁর মতে, কম টাকায়ও যে নিজেকে আকর্ষণীয় করে তোলা যায়, সেটা বোঝা যায় রাস্তার ধারে বিক্রি হওয়া পোশাকগুলো দেখলেই। পছন্দসই লম্বা শীতের পোশাকের সঙ্গে কোমরে একটা ছোট্ট বেল্ট কখনো কখনো স্টাইল বাড়িয়ে দিতে পারে বহু গুণে।
পঞ্চ বা ব্লেজার সবই পাবেন এসব দোকানে। পোশাক: মেসার্স বন্ধন ও নন্দিতা ফ্যাশন–২ঢাকার বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরলে আপনি খুঁজ পাবেন ভালো ভালো কিছু ব্র্যান্ডের পোশাকও। এখানে পাওয়া যাবে বেশ কম দামেই। নুরজাহান মার্কেটের আরেক বিক্রেতা বাহাউদ্দীন বলেন, প্রতিবার শীতের ফ্যাশনে আসে ভিন্নতা। এবারও নতুন নতুন বেশ কিছু পোশাক এসেছে। পঞ্চ বা ক্যাব সোয়েটার এবার নতুন ধরনের এসেছে। এর আগে সেটা ছিল উলের। এবার সেটা তো আছেই, তবে কাপড় ও স্টাইলে পরিবর্তন এসেছে। হালকা শীতেও পরার উপযোগী করে বানানো হয়েছে শীতের কিছু পোশাক।
শুধু আপনার যদি একটুখানি চলতি ফ্যাশন আর কাপড় সম্পর্কে ধারণা থাকে, তাহলে এসব বাজার থেকে নিশ্চিন্তে বেছে নিতে পারবেন মনের মতো শীতের পোশাক। তারপর শুধু নিজেকে তুলে ধরার পালা।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY