Home International অস্ট্রেলিয়ায় আবার সবকিছু খুলছে, কিন্তু এজন্য আপনি উদ্বিগ্ন বোধ করলে কী করবেন?

অস্ট্রেলিয়ায় আবার সবকিছু খুলছে, কিন্তু এজন্য আপনি উদ্বিগ্ন বোধ করলে কী করবেন?

40
0

সামনের দিনগুলোতে কোভিড বিধিনিষেধ শিথিল হয়ে আসছে অস্ট্রেলিয়ায়, এটিকে অনেকেই স্বাগত জানালেও কেউ কেউ উদ্বেগের মধ্যেও আছেন। এমন হলে আপনি কিভাবে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পারেন তা নিয়ে এখানে আলোচনা করা হলো।

আমরা আমাদের পরিবেশ এবং সামাজিক যোগাযোগ নিয়ে বেশ সচেতনতার সাথে ১৮ মাসেরও বেশি সময় কাটিয়েছি এবং আমাদের একের পর এক স্বাস্থ্য নির্দেশ অনুসরণ করতে হয়েছে।

তবে খুব শীঘ্রই, সেই নির্দেশগুলি সহজ হতে শুরু করবে।

নিউ সাউথ ওয়েলস, ভিক্টোরিয়া এবং এসিটি আগামী কয়েক দিনের মধ্যে লকডাউন থেকে বেরিয়ে আসছে কারণ সারা দেশে কোভিড ১৯ টিকা দেওয়ার হার বেড়েছে এবং আগামী কয়েক মাসে পুনরায় সবকিছু চালুর পরিকল্পনা হচ্ছে। আবার ফিরে আসবে সমুদ্র সৈকতে কাটানোর দিন, রাস্তায় ঘোরাঘোরি, পাব-রেস্তোরাঁয় আড্ডা, এবং বন্ধু ও পরিবারের সাথে একত্রে কাটানোর সুযোগ। Crowds of people sit on the sand at Bronte Beach in Sydney.

Crowds of people sit on the sand at Bronte Beach in Sydney.AAP

তবে বিধিনিষেধ শিথিল হয়ে যাওয়ায় অনেকে খুশি হলেও একইসাথে কেউ কেউ নার্ভাস।

সবকিছু পুনরায় খুললে কি ‘উদ্বেগ’ আছে ?

অলাভজনক যুব মানসিক স্বাস্থ্য সংস্থা হেডস্পেস-এর মনোবিজ্ঞানী মিরান্ডা ক্যাশিন বলেছেন, সবকিছু পুনরায় খুললে ‘উদ্বেগ’ অনুভব করা স্বাভাবিক।

“আমরা এত দীর্ঘ সময় ধরে এমন একটি অদ্ভুত বাস্তবতায় রয়েছি, তাই আবার সেই অবস্থায় ফিরতে সময় লাগবে।”

“অনেকেই দুশ্চিন্তা করে, কারণ এই মুহূর্তে আমাদের পৃথিবী খুবই অনিশ্চিত। এটি হল উদ্বেগের সাধারণ ধারণা ‘কী ঘটতে পারে? আমি কীভাবে মোকাবেলা করব? পরিবর্তিত অবস্থা দেখতে কেমন হবে?’  ইত্যাদি।”

Doctor and patient - Getty Images/Ariel Skelley

সারা দেশে সবকিছু খোলার সাথে সাথে, আমাদের ক্রমাগত নতুন জনস্বাস্থ্য আদেশের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে হবে এবং রোডম্যাপ অনুযায়ী পুনরায় খোলার জন্য সংশোধনীগুলি, সনাক্ত কেস সংখ্যা এবং অন্যান্য আপডেট লক্ষ্য রাখতে হবে।

৭০ বা ৮০ শতাংশ ডবল-ডোজ টিকা পুনরায় খোলার ক্ষেত্রে কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে যথেষ্ট সুরক্ষা দিলেও যারা টিকা দেয়নি, যেমন শিশু বা যাদের স্বাস্থ্যগত ইস্যু আছে যে কারণে তাদের টিকা দেওয়া যায় না, তাদের কাছে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকেই যায়।

এবং এটি এখনও পরিষ্কার নয় যে কীভাবে ভ্যাকসিন দেয়ার হারের পর্যায়গুলো এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে কেস সংখ্যাকে প্রভাবিত করবে বা কেস সংখ্যা বাড়বে না কমবে নাকি স্থিতিশীল থাকবে, ভ্যাকসিনগুলি ডেল্টা সংক্রমণ কতটা কমিয়ে দেবে, বা সময়ের সাথে সাথে ইমিউনিটি কতটা পরিবর্তিত হবে।

কীভাবে আপনার অনুভূতি নিয়ন্ত্রণ করবেন?

মিজ ক্যাশিন বলেছেন, যে ব্যক্তিরা উদ্বিগ্ন বোধ করছেন তাদের ব্যক্তিগত পছন্দ বা সীমানার দিকে নজর দেওয়া উচিত এবং সেগুলি অন্যদের সাথে আলোচনা করে পরামর্শ চাওয়া উচিত।

“স্বাস্থ্য আদেশ বা বিধি অনুসারে আপনি কী করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছেন সে সম্পর্কে সচেতন হোন, কারণ এটি আপনাকে সাহায্য করে কোন কোন সামাজিক আমন্ত্রণগুলি আপনি গ্রহণ করবেন বা আপনার স্বজনদের সাথে আপনি কীভাবে আলাপ করে পরামর্শ নিতে পারেন তা বুঝতে সাহায্য করবে।”

“তাই আপনি যদি পিকনিক করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন তবে পরিষ্কারভাবে বলুন – ঠিক আছে এটাই আমার কাম্য”।

মিজ ক্যাশিন বলেন যে এত মাস ধরে একটি নির্দিষ্ট রুটিনের মধ্যে থাকার পর আবার পৃথিবীব্যাপী ভ্রমণকে কঠিন করে তুলতে পারে।

তিনি বলেন, অনেকে আবার সবকিছু চালুর চিন্তাকে ভিন্নভাবে অনুভব করবেন।

“যাদের সামাজিক উদ্বেগ আছে তাদের জন্য সম্ভবত এই মুহুর্তে লকডাউন কিছুটা আরামদায়ক – কেউ কারো সাথে মিশছে না, তাই তাদের শূন্যতা বোধ করারও কোন অনুভূতি নেই, কারণ আমরা সবাই একই অবস্থায় আছি।”People are seen crossing Collins Street in Melbourne, the world's most locked-down city

People are seen crossing Collins Street in Melbourne. AAP

‘নিজের প্রতি সদয় হোন’

২৫ বছর বয়সী অ্যালি হনান সিডনির একজন ইন্টেরিয়র আৰ্কিটেক্ট, যার আগামী সপ্তাহের ক্যালেন্ডার ইতিমধ্যেই পূর্ণ হয়ে গেছে৷

জুনে শহরের লকডাউন শুরু হওয়ার ঠিক আগে তিনি একটি নতুন কাজ শুরু করেছেন এবং তখন থেকেই কনফারেন্সিং অ্যাপের মাধ্যমে সহকর্মীদের সাথে কাজ করছেন। অফিস আবার খোলার পরে তিনি এবারই প্রথমবারের মতো তাদের সাথে দেখা করবেন, বলছিলেন তিনি।

“আমি মূলত তাদের ফার্স্ট নেমগুলো পেয়েছি এবং সেই সময় সবাই বেশ ব্যস্ত ছিল। তাদের সাথে কোথাও যাওয়া বা জানার সময় ছিল না। আমার সহকর্মীদের সাথে সেই সম্পর্ক বা বন্ধুত্ব হয়ে উঠেনি।”

তবে তিনি বলছিলেন যে, “কিছু বন্ধু ইতিমধ্যেই পাব বুক করে রেখেছে এবং সেখানে জন্মদিনের পার্টি আসছে এবং এমন ইভেন্টগুলি তো আছেই।”

“আমি সেভাবেই চেষ্টা করছি, যতটুকু প্রতিশ্রুতি দিতে পারব।”

মিজ ক্যাশিন বলেন যে আপনি যদি সামনে যে পরিবর্তন আসছে সে সম্পর্কে নার্ভাস হন, তবে নিজেকে মানিয়ে নিয়ে এগিয়ে যাওয়া খুব উপকারী।

তিনি বলেন, “আমরা সবাই এমন এক পর্যায় পার হয়ে আসছি তাতে এই অনুভূতি স্বাভাবিক”।

“নিজের প্রতি আরো সদয় হতে হবে, কারণ এই অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা আপনার মধ্যে আরো জটিলতা তৈরী করবে। আপনি হয়তো ভাববেন ‘এরকম চিন্তা করা বোকামি’ বা ‘অন্যরা তো এটি ভাবছে না’; এ ধরণের চিন্তা আপনার মানসিক অবস্থা আরও খারাপ করে দেবে।”

“আমরা আসলে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক অবস্থার দিকে যেতে পারি।”

ব্যবসায়ীদের জন্য পরামর্শ

রিচার্ড ড্যানিয়েলস সিডনির উত্তরে একটি ছোট ক্যাফের ম্যানেজার। তিনি উদ্বিগ্ন এ কারণে যে লকডাউন শেষ হবার পর তাকে কিছু কঠোর পদক্ষেপ নিতে হচ্ছে।

একজন বিজনেস ওউনার হিসাবে নতুন জনস্বাস্থ্য আদেশের অধীনে টিকা না দেওয়া কাস্টমারদের ফিরিয়ে দেওয়া তার এবং কর্মীদের উপর নির্ভর করবে। তিনি বলেন, তাদের মধ্যে কেউ কেউ হয়তো তার নিয়মিত কাস্টমার।

“আমরা জানি কিছু কাস্টমার টিকা নিতে চায় না। কিন্তু যেহেতু তারা নিয়মিত কাস্টমার, এটা তাদের বোঝানো কঠিন।”

“আমরা তাদের বোঝানোর চেষ্টা করি, কিন্তু তারা আমাদের চিৎকার করে বলে, ‘টিকা নেওয়া বা না নেওয়া আমার পছন্দ।’ এটা সত্যিই কঠিন। এজন্য সত্যিই আমরা উদ্বিগ্ন। আমরা এই মুহূর্তে এগুলো নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করছি।”

যে ব্যবসাগুলি জনস্বাস্থ্যের আদেশ মেনে চলতে ব্যর্থ হবে তাদের পাঁচ হাজার ডলার বা তার বেশি জরিমানা  হবে।

মিজ ক্যাশিন বলেন যে, বিজনেস ওউনাররা কীভাবে এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবেন সে সম্পর্কে সহকর্মীদের সাথে কথা বলে এধরণের উদ্বেগ কমাতে পারেন।

ক্যাফেটি পুনরায় চালু করতে তার উদ্বেগ সত্ত্বেও, মিঃ ড্যানিয়েলস বলছেন যে তিনি আবার কাস্টমারদের ফিরে পেয়ে উচ্ছ্বসিত।

“আমি সেই মুহূর্তটি মিস করেছি যখন তারা কফি পান করে, তাদের খাবার উপভোগ করে এবং আড্ডা দেয়। এটি সত্যিই একটি দারুন অনুভূতি।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here