Home Bangladesh চামড়ায় ৫০০ কোটি ডলারের ভবিষ্যৎ

চামড়ায় ৫০০ কোটি ডলারের ভবিষ্যৎ

53
0

একসময় তৈরি পোশাকের পর দেশের প্রধান রফতানি পণ্য ছিল চামড়া। কিন্তু গত কয়েকবছর ধরে বাজারে দারুণ অস্থিরতা। লাখ টাকার গরুর চামড়া বিক্রি হচ্ছে তিন শ’ টাকায়। বিক্রি করতে না পেরে চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলার ঘটনাও ঘটেছে। এ বছর আবার লবণ দিতে দেরি করায় পচে গেছে অনেকগুলো।

চামড়া সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, বাংলাদেশের চামড়ার মান অন্য অনেক দেশের চেয়ে ভালো। তারপর এ দশা কেন? বিশ্লেষকরা বলছেন, চামড়া খাতের উন্নয়নে শিক্ষিত উদ্যোক্তা শ্রেণি আসছে না। এ জন্য দরকার সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা। তা না হলে সম্ভাবনাময় এ খাত সফলতার মুখ দেখবে না।

তারা বলছেন, প্রয়োজনীয় আর্থিক, কারিগরি ও অবকাঠামোগত সহায়তা পেলে চামড়ারও আছে ভবিষ্যৎ। এর জন্য নিরাপদ কর্মপরিবেশের সঙ্গে নিশ্চিত করতে হবে বেতন কাঠামো।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি জানিয়েছেন, চামড়া বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় খাত। এ খাতের উন্নয়নে সরকার নানা উদ্যোগ নিচ্ছে। গতবছরের তুলনায় কাঁচা চামড়ার দামও বাড়ানো হয়েছে। তিনি আরও জানান, আমাদের কাঁচামাল ও দক্ষ জনশক্তি রয়েছে। সক্ষমতা পুরোপুরি কাজে লাগাতে পারলে এ খাত থেকে বছরে ৫০০ কোটি ডলারের বেশি আয় করা সম্ভব।

খাত সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ষাটের দশকে যাত্রা শুরু করা চামড়া শিল্প পাঁচ দশকেও খুব একটা এগোয়নি। অথচ আশির দশকে যাত্রা শুরু করা পোশাক হয়ে গেছে অর্থনীতির অন্যতম ভিত। পোশাক শ্রমিকদের জন্য নিরাপদ কর্মপরিবেশ ও ন্যূনতম মজুরিও আছে। অথচ চামড়া শিল্পের শ্রমিকদের আজও কাজ করতে হচ্ছে পুঁতিগন্ধময় পরিবেশে।

চামড়ার হিসাব-নিকাশ

জানা গেছে, মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) চামড়ার অবদান এখন মাত্র শূন্য দশমিক ৩৫ শতাংশ। পরিসংখ্যান ব্যুরোর শ্রম জরিপের তথ্য অনুযায়ী ২০১৬ সালে এ খাতে শ্রমিক ছিল ১ লাখ ২৯ হাজার।

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যে দেথা গেছে, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে এ খাতে রফতানি আয় ছিল ১১২ কোটি ডলার। ২০১৬-১৭ তে এসে তা বেড়ে ১২৩ কোটি ডলার হয়।

পরের দুই অর্থবছরে চামড়া শিল্পের রফতানি আয় উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ১০৮ কোটি ডলার ও ২০১৮-১৯ অর্থবছরে হয় ১০২ কোটি ডলার। ২০১৯-২০ অর্থবছরে আরও কমে ৭৯ কোটি ৭৬ লাখ ডলারে নেমে আসে।

অবশ্য সদ্য সমাপ্ত ২০২০-২১ অর্থবছরের এ খাত থেকে আয় হয়েছে ৯৪ কোটি ১৬ লাখ ডলার। গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় যা ১৮ দশমিক ৬ শতাংশ বেশি।

জানা গেছে, বাংলাদেশের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের প্রধান বাজার ইউরোপ। সেখানকার করোনার প্রাদুর্ভাব কমলে ফিরে আসতে পারে চামড়ার সুদিন। তখন আবার বাড়বে চামড়ার দাম।

দাম কমলে ট্যানারি মালিকের লাভ

দেশে কোরবানির ঈদের সঙ্গে কাঁচা চামড়ার সরবরাহের সম্পর্ক অনেক দিনের। তথ্যে দেখা যায়, দেশে প্রায় ৩১ কোটি ৫০ লাখ বর্গফুট ক্রাস্ট ও ফিনিশিড চামড়ার সরবরাহ রয়েছে। এর একটি বড় অংশ আসে কোরবানির সময়। এ সময় চামড়ার দাম পড়ে যাওয়ায় পুরো লাভটাই যাচ্ছে আড়তদার, ব্যবসায়ী ও ট্যানারি মালিকদের পকেটে।

এদিকে চামড়ার ন্যায্য দাম নিশ্চিত করতে কাঁচা চামড়া রফতানির অনুমতিও দিয়েছে সরকার। ইতোমধ্যে প্রায় এক কোটি বর্গফুট ওয়েট ব্লু চামড়া রফতানির অনুমতি পেয়েছে দেশের পাঁচটি প্রতিষ্ঠান।  

লবণ নিয়ে নয়ছয়

কাঁচা চামড়ায় লবণ দিতে হয় দ্রুত। চামড়া আলাদা করার চার ঘণ্টার মধ্যে যদি লবণ দেওয়া যায় তবে সবচেয়ে ভালো। এবার ঈদের আগে বলা হয়েছিল লবণের ঘাটতি নেই। আমদানিরও দরকার হবে না। কিন্তু বাজারে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। মৌসুমি ব্যবসায়ীরা বলছেন লবণের দাম বেড়ে গেছে। কোরবানির সময় চাহিদা বাড়ে বলে সুযোগটি হাতছাড়া করেনি লবণ ব্যাপারীরা।

ছিল না সরকারের নজরদারি। তাই ৬০০ টাকা দামের ৭৫ কেজির বস্তার লবণ বিক্রি হয়েছে ৯০০ টাকায়। ওজনও ছিল কম। ৭৫ কেজির পরিবর্তে অনেক বস্তায় ছিল  ৬০ কেজি। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর জন্য যা বেশ হতাশাজনক।

বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশনের তথ্যমতে, আন্তর্জাতিক বাজারে কাঁচা চামড়ার দাম তুলনামূলকভাবে বাংলাদেশের চেয়ে বেশি। চাহিদা ও সরবরাহের ভিত্তিতে দাম নির্ধারিত হয়। তাই সঠিক তুলনা সম্ভব নয়।

বর্জ্য মিশছে নদীতে

চামড়া শিল্পের সম্ভাবনাকে মাথায় রেখে সাভারে গড়ে উঠেছে আধুনিক চামড়া শিল্পনগরী। প্রত্যাশা ছিল সাভারের এখানকার কারখানাগুলো উৎপাদনে গেলে রফতানি আয় বাড়বে। কিন্তু এই সময়ে উল্টো রফতানি আয় ধারাবাহিকভাবে কমেছে। অবশ্য হাজারীবাগের আড়াই শ’ কারখানার মধ্যে স্থানান্তরিত হয়েছে দেড় শ’টি।

এখনও নানা জটিলতায় জর্জরিত সাভার শিল্পনগরীর কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার। পুরোপুরি চালু হয়নি সেট। ট্যানারিগুলো বর্জ্য খোলা আকাশের নিচে ফেলছে। সেটা গিয়ে মিশছে বুড়িগঙ্গা ও ধলেশ্বরীর পানিতে।

রবিবার (১ আগস্ট) থেকে রফতানিমুখী তৈরি পোশাক শিল্প কারখানাগুলো চালু হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে অনুসরণের জন্য ১৫টি শর্ত মানতে হবে কারখানা মালিকদের। শনিবার (৩১ জুলাই) রাতে গার্মেন্টস মালিকদের এ ব্যাপারে একটি চিঠি দিয়েছে তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন- বিজিএমইএ।

সংগঠনের সভাপতি ফারুক হাসানের স্বাক্ষরিত চিঠিতে দেওয়া শর্তগুলো হলো:

১. কারখানা খোলা এবং ছুটির সময়ে গেট বা কারখানার অভ্যন্তরে শ্রমিকদের ভিড় এড়ানোর লক্ষ্যে কারখানায় প্রবেশ ও কারখানা ত্যাগ করার বিষয়ে Staggered Time নির্ধারণ করার ওপর জোর দেওয়া।

২. শারিরীক দূরত্ব বজায় রেখে গমনাগমন পথের ব্যবহার নিশ্চিত করা (রশি/শিকল দিয়ে পুরুষ ও নারী শ্রমিকদের জন্য আলাদা লাইন করে কারখানায় প্রবেশ এবং বাহির নিশ্চিত করতে হবে।

৩. সম্ভাব্য ক্ষেত্রে কর্মঘণ্টা বিভিন্ন শিফটে নির্ধারণ করা।

৪. ফ্লোরে বা কাজের স্থানগুলোতে ভিড় এড়িয়ে চলতে শ্রমিকদের উৎসাহিত করা।

৫. দুপুরের খাবারের বিরতি বা অন্যান্য বিরতি যথাসম্ভব Staggered Time এ করা।

৬. কারখানায় প্রবেশের সময় শ্রমিকদের দেহের তাপমাত্রা পরিমাপ করা অথবা প্রয়োজনে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করা।

৭. কর্মস্থলে (কারখানা বা প্রতিষ্ঠান) সহজে দৃষ্টিগোচর হয় এমন স্থানে হাত পরিষ্কার সমগ্রী রাখা এবং নিয়মিত সেগুলো পুনর্ভর্তি করা।

৮. পর্যাপ্ত সংখ্যক সাবানের ব্যবস্থাসহ প্রধান ফটকে হাত ধৌতকরণ-স্থান নির্দিষ্ট করা।

৯. কারখানায় প্রবেশের সময় সব শ্রমিক-কর্মচারীর হাত ধৌতকরণ বা জীবাণুমুক্তকরণ নিশ্চিত করা।

১০. হাত ধৌতকরণ বা জীবাণুমুক্তকরণের প্রতিটি স্থান/পানির কলের মধ্যে ন্যূনতম এক মিটার দূরত্ব নিশ্চিত করা।

১১. হাত ধৌতকরণ এবং জীবাণুমুক্তকরণের সঠিক পদ্ধতিগত নির্দেশাবলী দৃষ্টিগোচর স্থানে প্রদর্শন করা (যেমন: উভয়হাত কমপক্ষে

২০ সেকেন্ড ধরে ধৌত করা)।

১২. হাত ধোয়ার পর শুকানোর জন্য ড্রায়ার বা টিস্যু পেপারের ব্যবস্থা রাখা।

১৩. সার্বক্ষণিক মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করা।

১৪. কারখানার বাইরে সভা সমাবেশ, গণপরিবহন এবং ভিড় এড়িয়ে চলতে শ্রমিকদের উৎসাহিত করা।

১৫. করোনা সংক্রমণের উপসর্গ সম্পর্কে শ্রমিক-কর্মচারীদের অবহিত করা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here