তালিকাভু‌ক্তি প্রত্যাহা‌রের জন্য বিএসইসিতে আবেদন বেক্সিমকো সিনথেটিক্সের

পুঁজিবাজার থেকে স্বেচ্ছায় তালিকাভু‌ক্তি প্রত্যাহা‌রের জন্য সম্প্রতি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কাছে আবেদন করেছিল ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানি বেক্সিমকো সিনথেটিক্স লিমিটেড। এর পরিপ্রেক্ষিতে কোম্পানিটির আবেদন গ্রহণ করে আজ থেকে এর শেয়ার লেনদেন স্থগিত রাখার জন্য দুই স্টক এক্সচেঞ্জকে নির্দেশ দেয়া হ‌য়ে‌ছে ব‌লে ক‌মিশন সূ‌ত্রে জানা গে‌ছে।

এ‌দি‌কে নি‌জে‌দের শেয়া‌রহোল্ডার‌দের উ‌দ্দে‌শ্যে দেয়া এক বিজ্ঞপ্তি‌তে বে‌ক্সিম‌কো সিন‌থে‌টিক্স জা‌নি‌য়ে‌ছে, ড্রওন টেক্সচারড ইয়ার্ন (ডিটিওআই) নামে এক ধরণের পলিয়েস্টার সুতা উৎপাদন ও বিক্রির জন্য কোম্পানিটি ১৯৯০ সালের ১৮ জুলাই ‘যৌথমূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের পরিদপ্তর’-এ পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে নিবন্ধিত হয়। ১৯৯৩ সালের ৪ নভেম্বর ও ৬ নভেম্বর যথাক্রমে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত হয় কোম্পানিটি।

প্রতিষ্ঠার পর থেকেই কোম্পানির কার্যক্রম ছিল একক পণ্য অর্থাৎ ডিটিওয়াই ঘিরে। তবে তখন যেহেতু ডিটিওয়াই-এর ব্যাপক চাহিদা ছিল, সেহেতু কোম্পানিটিও ভালো মুনাফা অর্জন করে এবং ১৯৯৬ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত অর্থাৎ ১৮ বছর ধরে বিরতিহীনভাবে নিয়মিত লভ্যাংশ প্রদান করে। তবে ২০১৩ সালের পর থেকে কোম্পানি কোনো লভ্যাংশ ঘোষণা করতে পারেনি। তখন থেকে কোম্পানি খুবই কঠিন সময় পার করতে থাকে। ডিটিওয়াই আমদানির ওপর সরকার শুল্ক হ্রাস করায় বারবার কোম্পানির ব্যবসায়িক কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হতে থাকে। শুল্ক হ্রাসের কারণে বিদেশ থেকে আমদানিকৃত সস্তা ডিটিওয়াই বাজার দখল করে। ফলে বাংলাদেশে এই ধরণের সুতা উৎপাদন করে মুনাফা অর্জন অসম্ভব হয়ে পড়ে।

গত ৭ বছর ধরে সর্বোচ্চ চেষ্টা স‌ত্ত্বেও কোম্পানি লক্ষ্যমাফিক উৎপাদন বা মুনাফা অর্জন করতে পারেনি। এতে ব্যাপক আর্থিক ক্ষতি হয় কোম্পানিটির। এ কারণে গত কয়েক বছর ধরে কোম্পানির শেয়ার অভিহিত মূল্যের চেয়েও কম দরে কেনাবেচা হয়ে আসছে। পরবর্তী‌তে কোম্পানি উৎপাদন কার্যক্রম ও কারখানা বন্ধে বাধ্য হয়। আইনানুযায়ী সব দেনা পরিশোধের পর সব শ্রমিক এবং বেশিরভাগ কর্মকর্তা ও স্টাফকে ছাঁটাই করে।

এ অবস্থায় অন্য কোনো বিকল্প না থাকায় ডিএসই ও সিএসই‌তে কোম্পানির তালিকাভুক্তি প্রত্যাহার করে নেওয়া উচিৎ ব‌লে ম‌নে ক‌রে পরিচালনা পর্ষদ। যেহেতু স্টক এক্সচেঞ্জ থেকে কোনো কোম্পানির তালিকাভুক্তি বাতিলের বিষয়ে কোনো স্পষ্ট বিধিবিধান নেই, তাই এই বিষয়ে পরামর্শ চেয়ে বিএসই‌সির কা‌ছে চি‌ঠি দি‌য়ে‌ছে বে‌ক্সিম‌কো সিন‌থে‌টিক্স।

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আবেদনে শেয়ারহোল্ডারদের কাছ থেকে অভিহিতমূল্য বা প্রতি শেয়ার ১০ টাকা করে কিনে নেয়ার প্রস্তাব দি‌য়ে‌ছে কোম্পা‌নি‌টি।কমিশন আবেদন যাচাই বাছাই করে তালিকাচ্যুতির বিষয়টি অনুমোদন করেছে। যে‌হেতু বর্তমানে কোম্পানিটির শেয়ার অভিহিত মূল্যে লেনদেন হ‌চ্ছে ও কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে অভিহিত মূল্যে শেয়ার কিনে নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছে, তাই অস্বাভাবিক দরবৃদ্ধি ঠেকাতে আজ থেকেই এর শেয়ার লেনদেন স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসইসি।

Add Comment