৩০ ডিসেম্বর জনগণের ভোটাধিকার হত্যাদিবস পালন করা হবে : মির্জা ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘৩০ ডিসেম্বর আমরা জনগণের ভোটাধিকারের হত্যাদিবস হিসেবে পালন করা হবে।’

ঠাকুরগাঁওয়ে আজ শনিবার দুপুরে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘শুধু আমরা নই, সারা বাংলাদেশের মানুষ সবাই খুব ভালো করে জানে ২০১৮ সালে যে জাতীয় নির্বাচন যেটি হওয়ার কথা ছিল, সেটি ২৯ ডিসেম্বর রাতেই হয়ে গেছে। আওয়ামী লীগ পুরো রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে সমস্ত ভোট ডাকাতি করে নিয়ে গেছে সেদিন। জনগণকে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে। তাদের যে লক্ষ্য—একদলীয় শাসন ব্যবস্থা—সেটি প্রতিষ্ঠিত করেছে।’

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, ‘করোনাভাইরাসের টিকা নিয়েও সরকার দুর্নীতি ও চুরির অভ্যাস ছাড়তে পারেনি। আমরা এরই মধ্যে দেখেছি করোনার শুরুতে স্বাস্থ্যবিভাগকে দিয়ে কী দুর্নীতি করা হয়েছে। করোনা পরীক্ষায় রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে যে চুক্তি হয়েছিল সেখানে দুর্নীতির ফলে বর্তমানে কারাগারে রিজেন্টের মালিক। কিন্তু যে মন্ত্রী বা সচিব সেই চুক্তি করেছিলেন, তাঁদের কোনো জবাব দিতে হয়নি। মূলত বিষয়টি হচ্ছে যে সরকারের মধ্যে কোনো জবাবদিহিতা না থাকে, পার্লামেন্টে যখন কোনো দুর্নীতির জন্য কাউকে কোনো প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা যায় না, তখন তো সে দেশে এই দুর্নীতিটাই স্বাভাবিক।’

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, ‘সমগ্র পৃথিবীর মানুষ যখন এই করোনার টিকাকে তারা কিভাবে বিতরণ করবে, কাদের আগে দিবে বা পরে দিবে, কী টাকা লাগবে না লাগবে, এসব নিয়ে আলোচনা করছে। সে সময় কিন্তু আমাদের দেশের সরকার এখন পর্যন্ত স্পষ্ট কিছু বলতে পারেনি।’

এ সময় জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সাল আমিনসহ জেলা এবং উপজেলা বিএনপির নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

Add Comment