অস্ট্রেলিয়ায় ভয়াবহ দাবানল: বাংলাদেশিরা নিরাপদ রয়েছেন

ভয়াবহ দাবানলে পুড়ছে অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলস। এখনো হুমকির মুখে রয়েছে বৃহত্তর সিডনি, হানটার, ইলাওয়ারা ও শোলহেভেন অঞ্চল। তবে নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের তুলনায় কুইন্সল্যান্ডের পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন অগ্নিনির্বাপণ কর্মকর্তারা। দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন দুর্যোগপূর্ণ এ সময়ে সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

অন্যদিকে, দিনভর সিডনি শহরতলির আশপাশের এলাকায় আতঙ্ক থাকলেও পরিস্থিতি বেশ স্বাভাবিক ছিল। ১২টির মতো বাড়িঘর পুড়ে যাওয়া ছাড়া কোনো হতাহত বা বড় ধরনের দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি আজ মঙ্গলবার। আজ সকাল থেকে বাংলাদেশি–অধ্যুষিত কয়েকটি এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলের তালিকায় থাকলেও অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশিরা এখন পর্যন্ত নিরাপদ রয়েছেন।

নিউ সাউথ ওয়েলসে আগুনে পুড়ে যাওয়া একটি গাড়ি। ভয়াবহ দাবানলে পুড়ছে এই এলাকা। নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যজুড়ে ৭৫টি জায়গায় এখনো আগুন জ্বলছে। নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া, ১২ নভেম্বর। ছবি: রয়টার্স

নিউ সাউথ ওয়েলসে আগুনে পুড়ে যাওয়া একটি গাড়ি। ভয়াবহ দাবানলে পুড়ছে এই এলাকা। নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যজুড়ে ৭৫টি জায়গায় এখনো আগুন জ্বলছে। নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া, ১২ নভেম্বর। ছবি: রয়টার্স

সর্তকতামূলক জনবহুল শহর সিডনিসহ নিউ সাউথ ওয়েলসের ছয় শতাধিক স্কুল আজ বন্ধ ছিল। বিভিন্ন এলাকায় লোকজনকে নিরাপদে সরে যাওয়ার নির্দেশ থাকায় বিপুলসংখ্যক মানুষ তাঁদের বাড়িঘর ছেড়ে অন্যত্র অবস্থান নেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যজুড়ে ৭৫টি জায়গায় এখনো আগুন জ্বলছে। ১০টির অবস্থা অতি ঝুঁকিপূর্ণ।

দাবানল নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে কয়েক হাজার দমকলকর্মী। আজ নিউ সাউথ ওয়েলসে তাপমাত্রা ছিল ৩৭ ডিগ্রি, তবে সন্ধ্যার সঙ্গে সঙ্গে তাপমাত্রা কমতে থাকে। বাতাসের কারণে দাবানল আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে দেশটির আবহাওয়া অধিদপ্তর।

এদিকে রাজ্যব্যাপী খোলা জায়গায় আগুন জ্বালানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ রয়েছে। এর মধ্যেই এই নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করার অপরাধে চার ব্যক্তিকে জরিমানা করেছে এনএসডব্লিউ পুলিশ। তারা জনগণকে এই নিষেধাজ্ঞা কঠোরভাবে মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছে। রাজ্যজুড়ে এখনো জরুরি অবস্থা জারি রয়েছে।

Add Comment