পরাজয়ের সময় গলফ খেলছিলেন ট্রাম্প

৫৪-৬৮ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত রোমান সম্রাট ছিলেন নিরো। মানুষ তাঁকে মনে রেখেছে একজন নিষ্ঠুর সম্রাট হিসেবে। সাম্রাজ্য পুড়ে যাওয়ার সময় বাঁশি বাজাচ্ছিলেন তিনি। একই অবস্থা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের।

রিপাবলিকান এই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর পরাজয় যখন অবশ্যম্ভাবী, ক্ষুব্ধ কর্মী-সমর্থকেরা বিক্ষোভ করছেন; তখন তিনি নিশ্চিন্তে গলফ খেলেছেন।

গণমাধ্যমে বাইডেনকে বিজয়ী ঘোষণার সময় ট্রাম্প ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের স্টার্লিংয়ে নিজের গলফ ক্লাবে গলফ খেলছিলেন। সেই ছবি প্রকাশিত হয়েছে বহু গণমাধ্যমে।

পরে হোয়াইট হাউসে ফিরেই জো বাইডেন আর কমলা হ্যারিসের জয়কে অস্বীকার করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। টুইট-বার্তায় অভিযোগ করেন নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির। বলেন, এই নির্বাচন শেষ হতে আরো অনেক বাকি।

নিরোর মতো ডোনাল্ড ট্রাম্পকেও যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের সবচেয়ে বিভাজন সৃষ্টিকারী প্রেসিডেন্ট হিসেবে মনে রাখবেন বলে মার্কিন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ধারণা। সাদা-কালো, নারী-পুরুষ, অভিবাসী-মার্কিন ইত্যাদি নানাভাবে তিনি বিভাজন সৃষ্টি করেছেন। ক্ষমতায় এসেই ধর্মের কথা বলে নিরাপত্তার অজুহাত দেখিয়ে ছয় মুসলিম দেশের ওপর আরোপ করেছিলেন ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। শ্বেতাঙ্গ পুলিশের নির্মম হামলায় কৃষ্ণাঙ্গ যুবক হত্যার সময় নীরব ছিলেন ট্রাম্প। কৃষ্ণাঙ্গ, এশীয়সহ বিভিন্ন অশ্বেতাঙ্গ জাতিগোষ্ঠীর ওপর যখন শ্বেতাঙ্গরা হামলা চালায়, ততবারই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সরবে বা নীরবে হামলাকারীদেরই পক্ষ নেন।

শেষ পর্যন্ত ব্যালটে ট্রাম্পকে বিদায় দিয়েছেন মার্কিনিরা। তবে পরাজয় মেনে নেননি এই রিপাবলিকান প্রার্থী।

রিপাবলিকান শীর্ষ নেতাদের অনেকেই বলেছেন, ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের ভোট ও নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে যেসব অস্পষ্ট অভিযোগ তুলছেন, তা দেশটির গণতান্ত্রিক কাঠামোর জন্যই ক্ষতিকর। এই ক্ষতি সহজে পুষিয়ে ওঠা যাবে না। তবু ট্রাম্প বলছেন, তিনি মামলা করবেন।

Add Comment