শ্রীলঙ্কায় ‘ঘরবন্দী’ অস্ট্রেলিয়ার তিন ক্রিকেট দল

সন্ত্রাসীদের সিরিজ বোমা হামলায় বিপর্যস্ত শ্রীলঙ্কা। এখন পর্যন্ত নিহত ৩৫৯। এই সময়ের লঙ্কায় অবস্থান করছে অস্ট্রেলিয়ার তিনটি বয়সভিত্তিক ক্রিকেট দল। রীতিমতো ঘরবন্দী তারা।

ভয়াবহ বোমা হামলায় বিপর্যস্ত শ্রীলঙ্কা। মৃত ব্যক্তির সংখ্যা সাড়ে তিন শ ছাড়িয়ে গেছে। এ অবস্থায় বিদেশিদের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ মনে হওয়াই স্বাভাবিক। অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটের তিনটি বয়সভিত্তিক দল ঠিক এই পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। দল তিনটি এই মুহূর্তে শ্রীলঙ্কায় অবস্থান করলেও কোনোভাবেই ঘরের বাইরে পা রাখতে ইচ্ছুক নয়। এবং যত দ্রুত সম্ভব তারা শ্রীলঙ্কা ত্যাগ করতে চায়।

দাতব্য প্রতিষ্ঠান গুডনেসের প্রতিষ্ঠাতা কুশীল গুনাসেকেরা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন এ খবর। গুনাসেকেরা জানিয়েছেন, ক্যানবেরার অনূর্ধ্ব-১৩, সিডনির অনূর্ধ্ব-১৫ ও পার্থের মেয়েদের ক্রিকেট দল এখন শ্রীলঙ্কায় অবস্থান করছে। ফোনে ডেকান ক্রনিকলকে গুনাসেকেরা বলেন, ‘শ্রীলঙ্কায় খেলার জন্য বাইরের ৬০টি দলকে আমরা আমন্ত্রণ করেছিলাম, বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের। এই মুহূর্তে শ্রীলঙ্কায় আছে অস্ট্রেলিয়ার তিনটি দল—ক্যানবেরা (অনূর্ধ্ব-১৩), সিডনি (অনূর্ধ্ব-১৫) ও পার্থ (মেয়েদের দল)। নিরাপত্তাঝুঁকি থাকায় খেলোয়াড়েরা কোনোভাবেই বাইরে যাওয়ার কথা ভাবছে না এবং সন্ত্রাসী হামলার কারণে ওরা যত দ্রুত সম্ভব দেশ ত্যাগ করতে চায়।’

গুনাসেকেরা আরও জানান, ‘২ মে আরও ৮টি দলের শ্রীলঙ্কায় পা রাখার কথা রয়েছে। কিন্তু সম্ভবত তারা পরিকল্পনা বাতিল করবে। এটা ট্যুরিজম এবং গুডনেস ফাউন্ডেশনের আরও অনেক সুযোগ-সুবিধায় প্রভাব ফেলবে।’ এই দাতব্য সংস্থার সঙ্গে জড়িত রয়েছেন শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি কয়েক ক্রিকেটার—মুত্তিয়া মুরালিধরন, কুমার সাঙ্গাকারা, মাহেলা জয়াবর্ধনে ও রাসেল আর্নল্ড। গত রোববার ভয়াবহ সেই সিরিজ সন্ত্রাসী হামলায় মুরালিধরনের স্বজন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন গুনাসেকেরা।

Add Comment